এ যেন পাড়ার ক্রিকেট খেললো বাংলাদেশ ক্রিকেট দল

টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের ছুঁড়ে দেওয়া ৩০৪ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। তবে ইনোসেন্ট কাইয়া এবং সিকান্দার রাজার রেকর্ড গড়া জুটিতে ১০ বল হাতে রেখে ৫ উইকেটের সফরকারী বাংলাদেশের বিপক্ষে জয় তুলে নেয় স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। ইনোসেন্ট কাইয়া এবং সিকান্দার রাজা দুইজনই তুলে নেন শতক। ইনোসেন্ট ১১০ রানে ফিরলেও রাজা ১৩৫ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জয়ে এনে দিয়েই মাঠ ছাড়েন।

৩০৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের প্রথম ওভারে দলেরঅন্যতম সেরা পেসার মোস্তাফিজুর রহমানের শিকার হয়ে ফেরেন জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক এবং ওপেনিং ব্যাটার রেগিস চাকাবাহ। ওভারের প্রথম চার বল ডট দেন মোস্তাফিজ, পঞ্চম বলটি ফাইন লেগে ক্লিপ করে দুই রান নেন চাকাবাহ। শেষ বলটি অফ সাইডে ব্যাক অব লেংথে ফেলেন ফিজ। বলটি কভার দিয়ে খেলতে গিয়ে বটম এজে বোল্ড হন চাকাবাহ। দলীয় ২ আর ব্যক্তিগত ২ রানে ফেরেন জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক।

দ্বিতীয় ওভারে বল হাতে আসা শরিফুলকে প্রথম বলেই বাউন্ডারি হাঁকিয়ে স্বাগত জানান মাসাকান্দা। তবে তার এই স্বাগত জানানোর ভঙ্গিটা যেন পছন্দ হয়নি শরিফুলের। তাই তো পঞ্চম বলে মাসাকান্দাকে মোসাদ্দেকের তালুবন্দি করান এই পেসার। শরিফুলকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মাসাকান্দা বল তুলে দেন ঊর্ধ্বগগনে আর সেই বল তালুবন্দি করতে ভুল করেননি মোসাদ্দেক। ৫ বলে ৪ রান করা মাসাকান্দা ফেরেন দলীয় ৬ রানের মাথায়।

এরপর পঞ্চাশোর্ধ জুটি গড়ার পরেই ফেরান ওয়েসলি মাধেভেরকে। তবে চতুর্থ উইকেটে শতরানের জুটি গড়ে জিম্বাবুয়েকে কক্ষে ফিরিয়েছেন ইনোসেন্ট কাইয়া এবং সিকান্দার রাজা। বাংলাদেশ এমন খেলা দেখে মনে হচ্ছিল যে এ যেন পাড়ার ক্রিকেট খেলছে বাংলাদেশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.